1. admin@lalsabujerdesh.com : ডেস্ক :
  2. lalsabujerdeshbd@gmail.com : Sohel Ahmed : Sohel Ahmed
শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০২:৩৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
রাজধানীর বাজারগুলোয় কিছুটা কমেছে চালের দাম, বেড়েছে মুরগির দাম মুম্বাইয়ে ফের জঙ্গি হামলার হুমকি, সতর্কতা জারি বিএনপির আন্দোলনে জনগণ সাড়া দেয় না : আমু দেশের ৩২ জেলায় নিপাহ ভাইরাসের সংক্রমণ চন্দনাইশ হাশিমপুরে মিলাদ মাহফিলে শায়েখ মাও. হাসান আল- আজহারী ভৈরবে ছাত্রী অপহরণ মামলার আসামী গ্রেফতার সত্যিই আমরা স্মার্ট বাংলাদেশের দিকে যাত্রা শুরু করেছি – শিক্ষামন্ত্রী পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর অবজ্ঞা আর রক্ত চক্ষু উপেক্ষা করে শক্ত অবস্থান নিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু : ড.কলিমউল্লাহ বাগেরহাটের রামপালে ০৯ (নয়) কেজির অধিক তামারসহ চোর চক্রের ০৩ জন সদস্য আটক জাপানি মেয়েসহ আত্মগোপনে থাকা বাবাকে উদ্ধার করেছে র‌্যাব

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলার সরকারি টেক্সটাইল ভোকেশনাল ইন্সটিটিউট এর বেহাল দশা!

  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ৮ মে, ২০২০
  • ৫০৮ বার

কোটালিপাড়া প্রতিনিধি (মুন্সি তুহিন)ঃ গোপালগঞ্জ জেলার কোটালীপাড়া উপজেলার একমাত্র সরকারি টেক্সটাইল ভোকেশনাল ইন্সটিটিউট এর বেহাল দশা। স্কুলটির জরাজীর্ণ ও ভুতুড়ে পরিবেশ দেখে মনে হয় প্রতিষ্ঠানটি দেখার কেউ নেই।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৯৯ সালের বস্ত্র শিল্পের পোষক খাত কে আরও উন্নত করার লক্ষ্য এবং দেশের বৃহৎ জনগোষ্ঠীর বেকার সমস্যা দূর করার জন্য কিছু টেক্সটাইল ভোকেশনাল ইন্সটিটিউট করার পরিকল্পনা হাতে নিলেন এবং মন্ত্রীপরিষদ সভার একনেকে (ECNEC) প্রথম পর্যায়ে ৮টি টেক্সটাইল ভোকেশনাল ইন্সটিটিউট করার অনুমোদন করেন। তার মধ্য এই টেক্সটাইল ভোকেশনাল ইন্সটিটিউট একটি।
২০০০ ইং সালে হিরণ ইউনিয়নের মাঝবাড়ি হাইস্কুলের দক্ষিণ পশ্চিম পাঁশে কোটালিপাড়া-টুঙ্গিপাড়া রাস্তা পাঁশে ২.৫০ একর জায়গার উপর ভবনটি নির্মাণ করা হয়।
স্কুলটিতে বর্তমানে তিনজন সাধারন শিক্ষক এবং চারজন বিভিন্ন ট্রেডের শিক্ষক ও একজন সুপারেনটেনডেন্ট মোট ৮ জন কর্মকর্তা রয়েছেন। চারটি ট্রেডের মধ্য ড্রেস মেকিং, উইভিং, ডাইং, ফিনিসিং সঙ্গে সুইং, প্রিন্টিং রয়েছে। বর্তমানে নবম শ্রেণীতে ১৬০ জন, এবং ১০ম শ্রেণীতে ১৪০ জন ছাত্র ছাত্রী রয়েছে। এবার ২০২০ইং সালে এস,এস,সি পরীক্ষা দিয়েছে ১৫২ জন। গতবছরের এস,এস,সি পাশের সংখ্যা ছিল শতকরা ৯৮%। এ বছরেও ভালো ফলাফলের আশাবাদী স্কুল কর্তৃপক্ষ। স্কুলটিতে কোটালিপাড়া উপজেলা ছাড়াও গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম থেকে এই স্কুলে শিক্ষার্থীরা আসে। এই স্কুল থেকে এস,এস,সি পাস করে শিক্ষার্থীরা যে কোন জেনারেল কলেজে ভর্তি হওয়ার সুযোগ সহ টেক্সটাইল ডিপ্লোমা কলেজে ভর্তি হওয়ার সুযোগ রয়েছে।
স্কুলটি ২০০০ ইং সালের পর থেকে আর কোন সংস্কার করা হয়নি, প্রতিষ্ঠানের নামে ২.৫০ একর জায়গা হলেও চারভাগের একভাগ জায়গায় ভবনটি নির্মাণ করা হয়েছে, বাকি তিন ভাগ জায়গাই অরক্ষিত অবস্থায় পড়ে আছে। অরক্ষিত থাকার কারনে স্কুল বাউন্ডারীর ভীতরে বিভিন্ন জাতের ফলের গাছ, কাঠের গাছ লাগানো হলেও গরু ছাগলের অত্যাচারে সে গাছগুলো এখন আর নেই। বিদ্যালয়টিতে কোন নৈশপ্রহরী নেই।
স্কুলটির বর্তমান অবস্থাঃ স্কুলভবনটির মাঝখান বরাবর ইতিমধ্য ফাটল দেখা দিয়েছে, ছাদ দিয়ে পানি পড়ে, ভবনের প্ল্যাসটার ও রং উঠে গেছে, আসবাবপত্র ভেঙ্গে গেছে, জানালা দরজার গ্রিল, কাঁচ পুরাতন হওয়া ভেঙ্গে পড়েছে। রাস্তার পাশের জলাশয় মাটি দিয়ে ভরাট করা প্রয়োজন। ভবনের পশ্চিম ও দক্ষিণ পাঁশে শিক্ষার্থীদের খেলাধুলাসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠান করার জন্য মাটি দিয়ে মাঠ ভরাট করা একান্ত জরুরী হয়ে পড়েছে। স্কুলে শিক্ষার্থীর সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাওয়ায় শ্রোণি কক্ষ বৃদ্ধি করা প্রয়োজন। ড্রেস মেকিং ট্রেডের যন্ত্রপাতি জদিও পুরাতন কিন্তু সেগুলো দিয়ে এখনো কাজ চলছে, কিন্তু উইভিং, ডাইং, ফিনিসিং ট্রেডের পর্যাপ্ত যন্ত্রপাতি বা মেশিনারিজ নেই। তাই এলাকা বাসি উক্ত গুরুত্বপূর্ণ সরকারি টেক্সটাইল ভোকেশনাল ইন্সটিটিউটিকে ভবন পুনঃ নির্মাণ, মাঠ ভরাট, সুরক্ষিত বাউন্ডারি অয়াল, যন্ত্রপাতি ও বিভিন্ন ট্রেডের মেসিনারীজের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, কোটালিপাড়ার দায়িত্ব প্রাপ্ত এমপি ও মাননীয় ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব এডঃ শেখ মোঃ আবদুল্লাহ ও বস্ত্র অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) মহোদয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..