হে প্রভু ! আমাকে দীদার নসীব করুন, আমি আপনাকে দেখব। তিনি বললেন, তুমি আমাকে কখনও দেখতে পারবে না।

আর স্মরণ কর, যখন আমি মূসার জন্য ত্রিশ রাতের ওয়াদা করি এবং আরও দশ রাত দ্বারা
তা পূর্ণ করি। এভাবে তাঁর প্রভুর নির্ধারিত সময় চল্লিশ রাতে পূর্ণ হয়।
আর মূসা তার ভাই হারুনকে বললেন, তুমি আমার সম্প্রদায়ের মধ্যে প্রতিনিধিত্ব করবে, তাদের সংশোধন করবে এবং ফাসাদ সৃষ্টি- কারিদের অনুসরণ করবে না।

আর মূসা আমার নির্ধারিত সময়ে উপস্থিত হলেন
এবং তার সাথে তার রব্ব কথা বললেন, তখন তিনি বললেন, হে প্রভু ! আমাকে দীদার নসীব করুন, আমি আপনাকে দেখব। তিনি বললেন, তুমি আমাকে কখনও দেখতে পারবে না।

বরং পাহাড়ের দিকে তাকাও,যদি তা স্ব-স্থানে স্থির থাকে তাহলে তুমি আমার দর্শন পাবে। অতঃপর যখন তার প্রভু পাহাড়ে তাঁর জ্যোতির প্রকাশ ঘটালেন, তখন সেই পাহাড়কে টুকরো টুকরো করে দিলেন।
আর মূসা সংজ্ঞাহীন হয়ে পড়ে গেলেন। এরপর যখন জ্ঞান ফিরল তখন বললেন,হে প্রভু! আপনি
মহান পবিত্র ! আমি আপনার নিকট তাওবা করলাম এবং মুমিনদের দলে আমিই প্রথম অন্তর্ভুক্ত হলাম।

তিনি বললেন, হে মূসা ! আমি তোমাকে আমার নবুওয়ত ও বাক্যলাপ দ্বারা মানুষের মধ্যে শ্রেষ্ঠত্ব দিয়েছি। সুতরাং আমি যা দিয়েছি তা গ্রহণ কর এবং কৃতজ্ঞদের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাও।
সূরা আরাফ- ৭ (১৪২- ১৪৪)

Leave a Reply

Your email address will not be published.