1. admin@lalsabujerdesh.com : ডেস্ক :
  2. lalsabujerdeshbd@gmail.com : Sohel Ahmed : Sohel Ahmed
সোমবার, ২৭ মার্চ ২০২৩, ১২:২৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
নর্থ- সাইপ্রাস বাংলাদেশ কমিউনিটির “মহান স্বাধীনতা দিবস উদ্যাপন ২০২৩ “ বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণটি ছিল বাঙালির মুক্তি ও স্বাধিকার অর্জনের মূলমন্ত্র: ড.কলিমউল্লাহ ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিজয়নগরে অভিযান শিক্ষা কর্মসূচির উদ্দ্যোগে কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা প্রদান । রংপুরের গঙ্গাচড়ায় চিরকুট লিখে কিশোরীর আত্মহত্যা ভৈরব থেকে ৩৮ কেজি মাদকদ্রব্য গাঁজা পাচারকালে ০১ মাদক কারবারীকে আটক টেকনাফ ২বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল শেখ খালিদ মোহাম্মদ ইফতেখার এর বিদায়: নবাগত অধিনায়ক লে.কর্ণেল মোহাম্মদ মহিউদ্দিন আহমদ কে বরণ। দেশ ও প্রবাসের সকলকে পবিত্র মাহে রমজানের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সাংবাদিক মোঃ শহিদুল ইসলাম ফসলি জমি দখল করে মাটি বিক্রি, থানায় অভিযোগ বন্দর নগরীর চকবাজারে ডার্ক রেস্টুরেন্ট গুলো যেন অবৈধ মেলামেশার স্বর্গরাজ্য চট্টগ্রাম মহানগর বিচার বিভাগ কর্তৃক আয়োজিত ‘মত বিনিময় সভায়, সিএমপি কমিশনার কৃষ্ণ পদ রায়

১৪ ঠিকাদারের ১০০ কোটি টাকা আত্মসাৎ

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১১ জুলাই, ২০২০
  • ১১৬ বার


নিজস্ব প্রতিবেদক
কয়েকটি সরকারি মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল থেকে ১৪ ঠিকাদারের ১০০ কোটি টাকার বেশি আত্মসাৎ করেছে বলে গতকাল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে জানানো হয়েছে।
দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) থেকে বলার ছয় মাস পর স্বাস্থ্য অধিদপ্তর গত জুনের শেষের দিকে সেই ১৪ ঠিকাদারকে কালো তালিকাভুক্ত করে। দুদক তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে সাক্ষ্যপ্রমাণসহ প্রতিবেদন দিয়েছিল।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দেওয়া কালোতালিকায় শীর্ষে রয়েছে বেঙ্গল সাইন্টিফিক অ্যান্ড সার্জিক্যাল কোম্পানি। রাজধানীর তোপখানাভিত্তিক এই মেডিকেল যন্ত্রাংশ সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানটি বেশিরভাগ টাকাই আত্মসাৎ করেছে।
এই প্রতিষ্ঠানটি রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে প্রায় সাড়ে চার কোটি টাকা, সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে প্রথমে ১৬ কোটি ৬৬ লাখ এবং পরে মেসার্স মার্কেন্টাইল ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড ইউনির্ভাসাল ট্রেড কোম্পানির সঙ্গে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে ছয় কোটি টাকার বেশি আত্মসাৎ করে।
বেঙ্গল সাইন্টিফিক চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকেও অর্থ আত্মসাৎ করে। তবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বার্তায় সেই অর্থের পরিমাণ উল্লেখ করা হয়নি।

এর পরিপ্রেক্ষিতে দুদক ২০১৯ সালের ২৫ নভেম্বর বেঙ্গল সাইন্টিফিক ও মেসার্স আহমেদ এন্টারপ্রাইজের বিরুদ্ধে মামলা করে। এ ছাড়াও, গত বছরের জুলাই থেকে অক্টোবরের মধ্যে এই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে রংপুর ও সাতক্ষীরায় তিনটি মামলা করা হয়।
ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অর্থ আত্মসাৎকারী হিসেবে মেসার্স আমিন ট্রেডার্সের সঙ্গে মেসার্স আহমেদ এন্টারপ্রাইজের নামও আছে।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বার্তা মতে, এই দুই ঠিকাদার ১০ কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছে। গত বছর নভেম্বরে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।
রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অর্থ আত্মসাতের আরেকটি মামলা রয়েছে। সেখানে মেসার্স ম্যানিলা মেডিসিন, মেসার্স এসকে ট্রেডার্স, এমএইচ ফার্মা, মেসার্স অভি ড্রাগস, মেসার্স আলবিরা ফার্মেসি ও এসএম ট্রেডার্স যন্ত্রাংশ কিনতে ৫ কোটি টাকার বেশি, ফার্মাসিউটিক্যালস কিনতে সাড়ে ৩ কোটি টাকার বেশি এবং অনুমোদিত কেনাকাটায় সাড়ে ৯ কোটি টাকার বেশি আত্মসাৎ করেছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে দুদক ২০১৮ সালের জুলাইয়ে একটি মামলা দায়ের করে।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হিসাবরক্ষক থেকে কোটিপতি হওয়া আবজাল হোসেনের স্ত্রী রুবিনা খানমের নাম অর্থ আত্মসাৎকারী হিসেবে এই তালিকায় রয়েছে।
রুবিনার প্রতিষ্ঠান রহমান ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের যন্ত্রাংশ কেনার নামে সাড়ে ৩৭ কোটি টাকা এবং স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তহবিল থেকে ৫ কোটি ৯০ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছে। গত বছরের এপ্রিল ও জুনে এই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে দুটি মামলা দায়ের করা হয়।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বার্তায় বলা হয়েছে, ব্লেয়ার অ্যাভিয়েশন সাড়ে ৭০ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছে এবং দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে ৮০ লাখ ৭৫ হাজার টাকা পকেটস্থ করেছে। ২০১৫ সালে এই প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..