করোনাকালে মানবিক কাজে কেশবপুর থানা পুলিশের সাফল্য।

আঃজলিল বিশেষপ্রতিনিধিঃ

কেশবপুর করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু হওয়ার পর থেকে কেশবপুর থানা অফিসার ইনচার্জ জনাব মোঃ জসীম উদ্দীনের নেতৃত্ব পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছেন। করোনার বিস্তার রোধে দায়িত্ব পালন করে ইতোমধ্যে বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্য আক্রান্ত হয়েছেন। এরপরও মনোবল অটুট রেখে মাঠে রয়েছেন পুলিশ সদস্যরা। করোনা সম্পর্কে সচেতনতামূলক বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়নের পাশাপাশি নিজস্ব অর্থায়নে মানুষের মাঝে সুরক্ষাসামগ্রী বিতরণ, মাস্ক বিতরণ, করোনা রোগীর খোঁজ খবর নেওয়ার পাশাপাশি খাদ্য সামগ্রী পৌছায় দিচ্ছেন তারা। অসুস্থদের হাসপাতালে পৌঁছে দিচ্ছেন। এউপজেলায় করোনায় কেউ মারা গেলে লাশ দাফনের দায়িত্ব পড়ছে কেশবপুর থানা পুলিশের ওপর।

গত ১৬ জুলাই করোনা আক্রন্ত হয়ে জায়েদা বেগম(৫৫), স্বামী: আঃ বারীক মোড়ল সাং-মজিদপুর (পূর্বপাড়া), থানা: কেশবপুর, যশোর করোনা পজেটিভ হয়ে তাহার বোনের মেয়ে জামাই বাড়ী কলারোয়ায় কবিরাজ দেখাতে গিয়ে মৃত্যুবরণ করে। অতঃপর তাহার মৃতদেহ নিজ বাড়িতে (কেশবপুর) দাফন দিতে চাহিলে স্থানীয় উশৃংখল জনসাধারণ তুমুল বাধাবারন সৃষ্টি করে। অফিসার ইনচার্জ জনাব মোঃ জসীম উদ্দীন উক্ত সংবাদ জানতে পেরে সঙ্গীয় অফিসার ফোর্স সহ ১৭ জুলাই তারিখ রাত্র ০৩:৪৫ ঘটিকায় ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পুলিশি ব্যবস্থাপনায় মৃত্যুদেহের জানাজাসহ দাফন কার্য সম্পন্ন করেন। তাছাড়াও ১৬ জুলাইতে একদিনে ১০ জন জুয়াড়িদের গ্রেফতার। ১৫ জুলাই তারিখ ০১ কেজি গাঁজা সহ ০১জন মহিলা আসামীকে হাতেনাতে গ্রেফতার করেন।

এসব মানবিক কাজ করে প্রশংসা কুড়িয়েছে কেশবপুর থানা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.