1. admin@lalsabujerdesh.com : ডেস্ক :
  2. lalsabujerdeshbd@gmail.com : Sohel Ahmed : Sohel Ahmed
বুধবার, ২২ মার্চ ২০২৩, ০৯:১৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বঙ্গবন্ধু বাঙালি চেতনার এক অনন্য প্রতিষ্ঠানের নাম: ড.কলিমউল্লাহ আজ প্রয়াত রাষ্ট্রপতি আলহাজ্ব মোঃ জিল্লুর রহমানের ১০ম মৃত্যুবার্ষিকী ভৈরব প্রেসক্লাবের সভাপতি সাধারণ সম্পাদকসহ ৫ জন নামধারী সাংবাদিক ও ২৪ জন অসাংবাদিক সদস্যের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা। নিহত সেনা সদস্য নাজিম উদ্দিনের দাফন সম্পন্ন রংপুরের গঙ্গাচড়ায় চার বছরের কণ্যা শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে (৫৫) বছরের বৃদ্ধা আটক সরকারি কালীগঞ্জ শ্রমিক কলেজের নবীন বরণ অনুষ্ঠিত মৃত্যুর মুখে দাঁড়িয়েও বীর শহীদদের রক্তের সঙ্গে বেইমানি করেননি বঙ্গবন্ধু : ড.কলিমউল্লাহ খুচরা পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি, ১ মার্চ মাস থেকেই কার্যকর আজ বিশ্বনাথে ছাত্রলীগের নতুন নেতৃত্বের কর্মসূচী কবি এস.পি.সেবু ভৈরবের একজন প্রথিতযশা সাংবাদিক আব্দুল হালিম

ব্রাক্ষণবাড়িয়ার নাসিরনগরের ধরমন্ডলে হত্যা মামলার পলাতক আসামির মৃত্যু

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১১ আগস্ট, ২০২০
  • ৮৩ বার

ব্রাক্ষণবাড়িয়া প্রতিনিধি : ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেরলার ধরমন্ডল ইউনিয়নের ধরমন্ডল গ্রামের হত্যা মামলার পলাতক আসামির মৃত্যু হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।জানাগেছে ধরমন্ডলের দুই দল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে নিহত হাদিস মিয়া (২৮) হত্যা মামলার পলাতক আসামি জলদার মিয়া (৬০) মারা গেছেন।

সোমবার ১০ আগস্ট রাতে উপজেলার ধরমন্ডল ইউনিয়নের ধরমন্ডল গ্রামের নিজ বাড়িতে আহত অবস্থায় মৃত‌্যু হয় জলদারের জলদার মিয়া ধরমন্ডল গ্রামের সাহাব আলীর ছেলে।

অটোরিক্সাকে সাইড না দেওয়াকে কেন্দ্র করে বৃহস্পতিবার ৬ আগস্ট২০২০ দুপুরে ধরমন্ডল বাজারে নজরুল ইসলাম ও একলাছ মিয়ার মধ্যে বাকবিতণ্ডা ও পরে হাতাহাতি হয়। পরে উভয়পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ধরমন্ডল সড়কে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

সংঘর্ষে নজরুল ইসলামের সমর্থক হাদিস মিয়া বুকে টেটাবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হন। আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাদিস মিয়াকে হবিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। সংঘর্ষে একলাছ মিয়ার সমর্থক জলদার মিয়াসহ উভয়পক্ষের আরও ২০ জন আহত হন।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেয়। সেসময় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তিন জনকে আটক করে।

জলদার মিয়ার পরিবারের সদস্যদের দাবি, দুই দল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে জলদার মিয়া আহত হন। তাকে নাসিরনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। পরে হাদিস মিয়ার হত্যা ঘটনায় মরিয়ম চান বাদী হয়ে ২৯ জনকে আসামি করে নাসিরনগর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এই হত্যা মামলায় জলদার মিয়া ছিলেন ১২ নম্বর আসামি। মামলা হওয়ার পর থেকেই আত্মগোপনে ছিলেন জলদার মিয়া। সোমবার রাতে নিজ বাড়িতে মারা যান তিনি।

নাসিরনগর থানা পুলিশ জানা ‘সংঘর্ষের ঘটনায় জলদার মিয়া আহত হয়েছিলেন কি না তা তাদের জানা নেই। তবে তিনি মামলার পলাতক আসামি ছিলেন বলে তাদের জানা অাছে। তার শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্নও নেই। তারা জলদারের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে বলে জানা গেছে। রিপোর্ট পেলে বিস্তারিত বলা যাবে বলে জানান থানা পুলিশ।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..