1. admin@lalsabujerdesh.com : ডেস্ক :
  2. lalsabujerdeshbd@gmail.com : Sohel Ahamed : Sohel Ahamed
মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ০৭:৪০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বিএসএনপিএস কমিটি গঠন:সভাপতি আবু বকর সিদ্দিক সাঃ সম্পাদক শামছুল আলম,সহ সাঃ সম্পাদক ছাবির উদ্দিন রাজু গাজীপুর ভবানীপুর এলাকার শামীম টেক্সটাইল মিলে তুলার গুদামে আগুন ‘জলবায়ু পরিবর্তনে ৭১ লাখ বাংলাদেশি বাস্তুচ্যুত’- ডব্লিউএইচও ভৈরবে আলোচিত তানজিনা হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেছে এলাকাবাসী বিএমএসএফ প্রতিষ্ঠাতার কণ্যা জেরিন এসএসসিতে গোল্ডেন জিপিএ লাভ বিএমএসএফ নিজস্ব গঠনতন্ত্রে পরিচালিত ট্রাস্টিনামা দলিলের অন্তর্ভুক্ত নয় -সাধারণ সভায় নেতৃবৃন্দ সামাজিক সংগঠন জাগ্রত সিক্সটিনের উপহার পেল পঙ্গু রহিম মিয়া অভিযাত্রিক সাহিত্য ও সংস্কৃতি সংসদ এর  ২২৬১ তম সাপ্তাহিক সাহিত্য আসর অনুষ্ঠিত রংপুরে কৃষকের মুখে হাসি ফুলকপির  ফলন ভালো  হওয়ায় যশোর সীমান্তে এক কিশোরের সাইকেলে পাওয়া গেল ১৫ পিচ স্বর্ণের বার

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের খবর শুনে প্রথম প্রতিবাদ সভা করেছিলেন সিরাজ উদ্দীন আহমেদ

  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ১৪ আগস্ট, ২০২০
  • ৩১৪ বার

 

বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলার কৃতি সন্তান, পিএসসির সাবেক সদস্য ও সচিব সিরাজ উদ্দিন আহমেদ। ‘৭৫ এর ১৫ই আগস্টের পরে বরগুনা পটুয়াখালী থেকে রক্ষীবাহিনী নিয়ে ঢাকায় প্রতিরোধ সংগ্রাম, চাকুরীচূত হন। আবার চাকুরীতে ফিরে পান। এই একজন ব্যক্তি যার ইতিহাস তাকে অন্যদের থেকে আলাদা ভাবে তুলে ধরেছে।

পাকিস্তান আমলের ইপিসিএস কর্মকর্তারা, সিএসপিরা দাপট দেখাতেন ক্ষমতার কেন্দ্রে থেকে কিন্তু মাঠে দাপট দেখিয়েছিলেন এই একজন, সিরাজ উদ্দীন আহমেদ।
,১৫,ই আগস্টেরবপরে অনেক আমলা-সচিবই কারাভোগ করেন, নানাভাবে অন্যায়ের শিকার হন। তাদের সঙ্গে সিরাজ উদ্দীন আহমেদের প্রতিবাদী চেতনা প্রখর ছিলো।
তিনি ঘরে বসে গ্রেফতার হন নি বরং হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদ করেছিলেন এবং তার যা কিছু ছিল, তাই নিয়ে প্রতিবাদে নেমেছিলেন।
১৯৭৫ সালে বরগুনার মহকুমা প্রশাসক (এসডিও) ছিলেন।
বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের খবর শুনে সিরাজ উদ্দিন আহমেদ সকাল সাড়ে ৮ টায় তার সরকারি বাসভবনে ছাত্রলীগ নেতাদের নিয়ে প্রথম প্রতিবাদ সভা করেছিলেন।
প্রতিবাদ সভার পরে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের নিয়ে বরগুনা শহরে প্রতিবাদ মিছিলের নেতৃত্ব দেন সিরাজ উদ্দীন আহমেদ।

বরগুনার তৎকালীন মহকুমা পুলিশ অফিসার (এসডিপিও) ফারুক আহমেদকে সঙ্গে নিয়ে পুলিশ লাইনে পুলিশ সদস্যের উদ্দেশ্যে বলেন, এ সরকার অবৈধ বাঙ্গালী জাতি মানবে না। এ সরকার মানি না।
সিরাজ উদ্দীন আহমেদের সরকারী বাসভবনে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখেন। বরগুনার সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখার নির্দেশ দেন।

১৬ আগস্ট তার বাসভবনে আয়োজিত শোক সভায় বরগুনার বিভিন্ন পদে কর্মরত সরকারি কর্মকর্তা, ছাত্রনেতা ও আওয়ামী লীগ নেতাসহ বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশার মানুষ অংশ নেয়। এর মধ্য দিয়ে অবৈধ সরকারের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়।
কিন্তু সারা দেশের আর কোথাও এ আন্দোলনের কোনো সমর্থন না পাওয়ায় এক সময় ভেঙে পড়ে সে আন্দোলন। পরবর্তীতে আন্দোলনে সম্পৃক্ততার অভিযোগে নেতাকর্মীদের অনেককেই জেল-জুলুমের শিকার হতে হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..