1. admin@lalsabujerdesh.com : ডেস্ক :
  2. lalsabujerdeshbd@gmail.com : Sohel Ahamed : Sohel Ahamed
শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ১১:২৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ভৈরবে উপজেলা যুবদলের আহবায়ক দেলোয়ার হোসেন সুজন কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ রাজারহাটে বর্ণাঢ্য আয়োজনে হানাদার মুক্ত দিবস পালিত রাজারহাটে সিংহীমারী উচ্চ বিদ্যালয়ের কমিটি গঠনে অনিয়মের অভিযোগ নতুন জঙ্গি সংগঠন পুলিশ সদস্যদের হত্যার মিশনে মাঠে নেমেছে: র‌্যাব বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপ সৃষ্টি, কমতে পারে রাত ও দিনের তাপমাত্রা রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে ভূমিকম্প অনুভূত অপপ্রচারে বিভ্রান্ত না হতে দেশবাসীর প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার গুলশানের বাসভবন ফিরোজার সামনে চেকপোস্ট বনানীতে জঙ্গি সন্দেহে একটি আবাসিক হোটেল অভিযান রাজধানীর বাজারে চালের দাম বাড়লেও কমেছে সবজির দাম

নাইক্ষ্যংছড়ি ঘুমধুমে আত্নীয়ের বাড়ি থেকে এক ছাত্রের লাশ উদ্ধার!

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১৯ আগস্ট, ২০২০
  • ৮২ বার

 

 

মঙ্গলবার (১৮ আগস্ট) ঘুমধুম ইউনিয়নের তুমব্রু কোলালপাড়া এলাকায় এক আত্মীয়ের বাড়ি থেকে ওড়না পেছানো অবস্থায় তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুমে ফরিদ আলম নামে এক ছাত্রের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে।

নিহত ফরিদ আলম সদ্য প্রকাশিত এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিলেন। সে ঘোনারপাড়া এলাকার আবদ
ফরিদ আলম ফকিরা ঘোনা এলাকার আব্দুল মোনাফের ছেলে এবং স্থানীয় ছাত্রলীগের নেতা।এলাকায় শান্ত-স্বভাবের ছেলে হিসেবে তার পরিচিতি ছিল।ছেলে প্রকৃত পক্ষে আত্নহত্যা করেছে বলে মনে হয় না।তাকে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করে কৌশলে লাশের গলায় উড়না পেঁচিয়ে দিয়েছে বলে দাবী করেছেন ফরিদ আলমের পিতা আবদুল মোনাফ।ছেলের মৃত্যুর ঘটনা রহস্যজনক দাবী করেছেন তিনি।তাকে হত্যার অভিযোগ এনে নাইক্ষ্যংছড়ি থানায় ৪ জন এজাহারভুক্ত এবং অজ্ঞাতনামা ২/৩ জন কে আসামী করে এজাহার দায়ের করেছে আবদুল মোনাফ।

আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করে ঘুমধুম পুলিশ ফাড়ি ইনচার্জ ইন্সপেক্টর দেলোয়ার হোসেন জানান, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে বিশেষজ্ঞ দল। পরে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিনজনকে পুলিশ হেফাজতে আনা হয়েছে। ময়নাতদন্তের পর জানা যাবে এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা।

মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে স্থানীয় ঘুমধুম ফাড়ি পুলিশ ওই যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন নাইক্ষ্যংছড়ি থানা অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ আলমগীর হোসেন।
এ ব্যপারে প্রতিবেদককে জানান, এলাকা ও প্রতিবেশী কথা বলেছি, সব্বাই পরিকল্পিত হত্যার শিকার হয়েছে মনে করছেন।
তিনি আরোও বলেন, এ ব্যাপারে নাইক্ষ্যংছড়ি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মুহাম্মদ আলমগীর হোসেন জানান,অভিযোগ পেয়েছি,ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পেলে বলা যাবে,এবং তদন্ত পূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

এই ঘটনায় তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। আটকৃতরা হলো নিহত ফরিদের মামাতো ভাই মিজান, তার বড় বোন ফরিজা বেগম এবং তার স্বামী নুরুল আলম (কালু খলিফা)।

অবশ্য নিহতের পরিবারের লোকজনের দাবী ফরিদকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। ফরিদের পিতা জানান- সন্ধ্যা ৭টার দিকে কেউ একজন ফোন করে ঘর তার ছেলেকে ডেকে নেয়। পরে রাত ১০টার দিকে ফরিজা বেগমের বাড়িতে ছেলের আত্মহত্যা হয়েছে খবর পেয়ে ছুটে আসেন তিনি।

ঘটনাস্থলে লাশের অবস্থা দেখে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারনা তার। পুলিশ প্রাথমিকভাবে ঘটনার বিষয়টি সন্দেহজনক বলে অবহিত করেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, এলাকায় বিনয়ী এবং প্রতিবাদী স্বভাবের ছেলে হিসেবে পরিচিত ছিল ফরিদ আলম। ছাত্রলীগের রাজনীতির পাশাপাশি সামাজিক কাজেও সম্পৃক্ত ছিল।

নিহতের ভাই শাহা আলম জানান- তাদের পিতা আবদুল মোনাফের সাথে কাদের মেম্বারের উত্তরাধিকার সূত্রে জায়গাজমির বিরোধ ছিল। আর ফরিদ প্রায় সময় কাদের মেম্বারের মেয়ে ফরিজার বাড়িতে ইন্টারনেট (ওয়াইফাই) ব্যবহার করার জন্য যেতো। এদিকে ফরিদের গলায় ওড়না পেছানো থাকলেও লাশ খাটের উপর পড়ে ছিল। এই কারনে ঘটনাটি হত্যা হিসেবে দেখছেন তিনি।

এদিকে ঘটনার ৯ঘণ্টা আগে ফরিদ তার ফেসবুক পেইজে আবেগজড়িত একটি রোমান্টিক গান শেয়ার করেন। সারাদিন বিভিন্নজনের সাথে কথাও বলেছেন।

ফরিদের বাল্য বন্ধ্য আবদুল্লাহ আল ফাইসাল জানান- ফরিদের সাথে তেমন কোন নারীর সম্পর্ক ছিল না। সবসময় টেনশন মুক্ত থাকতো। ঘটনার দিন বিকালেও তার সাথে হাসিখুশি কথা বলেছি। কিন্তু এমন নির্মন ঘটনা কোনভাবে মেনে নেওয়া যায়না।

সুস্থ তদন্তের মাধ্যমে অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছেন, এলাকাবাসী।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..