1. admin@lalsabujerdesh.com : ডেস্ক :
  2. lalsabujerdeshbd@gmail.com : Sohel Ahamed : Sohel Ahamed
বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ১১:২৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ভৈরবে উপজেলা যুবদলের আহবায়ক দেলোয়ার হোসেন সুজন কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ রাজারহাটে বর্ণাঢ্য আয়োজনে হানাদার মুক্ত দিবস পালিত রাজারহাটে সিংহীমারী উচ্চ বিদ্যালয়ের কমিটি গঠনে অনিয়মের অভিযোগ নতুন জঙ্গি সংগঠন পুলিশ সদস্যদের হত্যার মিশনে মাঠে নেমেছে: র‌্যাব বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপ সৃষ্টি, কমতে পারে রাত ও দিনের তাপমাত্রা রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে ভূমিকম্প অনুভূত অপপ্রচারে বিভ্রান্ত না হতে দেশবাসীর প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার গুলশানের বাসভবন ফিরোজার সামনে চেকপোস্ট বনানীতে জঙ্গি সন্দেহে একটি আবাসিক হোটেল অভিযান রাজধানীর বাজারে চালের দাম বাড়লেও কমেছে সবজির দাম

মোংলা বন্দরের উন্নয়নের কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ১৪৩ বার

মোঃজাহান জেব কুদরতী,
মোংলা প্রতিনিধি।।

বাংলাদেশের ২য় সমুদ্রবন্দর চালনা তথা মোংলা “সমুদ্র বন্দর”।সেই মোংলা বন্দরের উন্নয়নে গৃহীত বড় প্রকল্পগুলোর কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে।এ প্রকল্পগুলো সম্পন্ন হলে মোংলা বন্দরের চিত্র পাল্টে যাবে বলে বোদ্ধাদের অভিমত।বেড়ে যাবে বন্দরের গতি ও ধারণ ক্ষমতা। দেশের আমদানি রপ্তানি কার্যক্রমে রচিত হবে নতুন দিগন্ত।
মোংলা সমুদ্র বন্দরের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ নদীর নাব্যতা ঠিক রাখা। সেই লক্ষ্যে বন্দর চ্যানেলে নিয়মিত ড্রেজিং কার্যক্রমও অব্যাহত রয়েছে।
ড্রেজিং সম্পন্ন হলে ১০ ফিট গভীরতার জাহাজও অনায়াসে বন্দরের জেটিতে এসে ভিড়তে পারবে।
বন্দর সূত্রে জানা গেছে, দেশি-বিদেশি জাহাজের অবস্থান নিয়মিত পর্যবেক্ষণের জন্য ভিটিএমআইএস প্রবর্তন করার জন্য ভেসেল ট্রাফিক ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেম (ভিটিএমআইএস) প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ এগিয়ে চলছে। এ প্রকল্পের প্রাক্কলিত ব্যয় ৫২ কোটি টাকা।
প্রকল্পটি বাস্তবায়নের মাধ্যমে বন্দর সীমানায় আসা সমুদ্রগামী জাহাজসমূহ মনিটরিং করাসহ দক্ষতার সঙ্গে হ্যান্ডলিং করার মাধ্যমে সেবার মান উন্নীত করা যাবে।
সরেজমিনে দেখা যায়-মোংলা বন্দর চ্যানেলের আউটার বারে ড্রেজিং প্রকল্পের কাজ এগিয়ে চলছে। ৭১২ কোটি ৫০ লাখ টাকার এ প্রকল্পটির বাস্তবায়নকাল ২০১৭ সালের জুলাই থেকে এ বছরের ডিসেম্বর।প্রকল্পটির অধীনে ১০৩ দশমিক ৯৫ লাখ ঘনমিটার ড্রেজিং কাজ সম্পন্ন করা হবে।
প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে মোংলা বন্দরে ১০ দশমিক ৫ মিটার ড্রাফটের জাহাজ হ্যান্ডলিং এর সুবিধা সৃষ্টি হবে। ২০১৯ সালের ১ ডিসেম্বর এ প্রকল্পের ড্রেজিং কাজ শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে ৯০ লাখ ঘনমিটার ড্রেজিং কাজ সম্পন্ন হয়েছে। অবশিষ্ট ড্রেজিং কাজ চলছে।
মোংলা বন্দরের জন্য সারফেস ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্ট বাস্তবায়নে ২৪ কোটি ৭২ লাখ ৫০ হাজার টাকার প্রকল্প কাজ এগিয়ে চলছে। প্রকল্পটির অধীনে মোংলায় একটি সারফেস ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্ট স্থাপন করা হবে।প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে মোংলা বন্দর, সমুদ্রগামী জাহাজ এবং বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে সুপেয় পানির চাহিদা মেটানো সম্ভব হবে। প্রকল্পের জন্য রিজার্ভার নির্মাণের পাইলিং এবং সীমানা প্রাচীর নির্মাণ কাজও শেষের দিকে।
মোংলা বন্দরের জন্য অত্যাবশ্যকীয় যন্ত্রপাতি/সরঞ্জাম সংগ্রহে ৪৩৩ কোটি ৫২ লাখ টাকার একটি প্রকল্প ২০১৮ সালের জুলাইয়ে শুরু হয়। যা শেষ হওয়ার কথা ২০২১ সালের জুনে। প্রকল্পটির অধীনে বিভিন্ন ধরনের ৬৪টি ইকুইপমেন্ট এবং ১১টি নির্মাণ যন্ত্রপাতি সংগ্রহ করা হবে।এর ফলে বন্দরে কন্টেইনার ও কার্গো হ্যান্ডলিংয়ে দক্ষতা বৃদ্ধি পাবে। ১৯টি ইকুইপমেন্টের এনওএ প্রদান করা হয়েছে।এখন চুক্তি স্বাক্ষরের অপেক্ষায় আছে।৪৫টি ইকুইপমেন্টের মূল্যায়ন প্রতিবেদন অনুমোদিত হয়েছে।
মোংলা বন্দরে আধুনিক বর্জ্য ও নিঃসৃত তেল অপসারণ ব্যবস্থাপনা প্রকল্পের সম্ভাব্য ব্যয় ৪০১ কোটি ২৪ লাখ টাকা।প্রকল্পটির অধীনে বিভিন্ন ধরনের ইকুইপমন্টেসহ একটি বর্জ্য সংগ্রহকারী জলযান (মারপল সিপ) সংগ্রহ করা হবে। মোংলা সমুদ্র বন্দর এলাকায় চলাচলকারী বিভিন্ন বাল্ক, কন্টেইনার, ট্যাংকার ও অন্যান্য জলযান নিসৃতঃ তেল ও পেট্রোলিয়াম জাতীয় ব্লিজ, স্লাজ, ব্যালাস্ট, নিকাশি, বর্জ্য পানি ও অন্যান্য আবর্জনা সংগ্রহের জন্য বর্জ্য সংগ্রহ করা এবং পরিবেশসম্মত বর্জ্য ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করা সম্ভব হবে।
গত বছরের ২৪ ডিসেম্বর এ প্রকল্পটি একনেকে অনুমোদিত হয়। পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগের জন্য এ বছরের ১৭ ফেব্রুয়ারি ইওআই আহ্বান করা হয় এবং বছরের ১ লা মার্চ তা খোলা হয়। মূল্যায়ন কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। মোংলা বন্দরের জন্য সহায়ক জলযান সংগ্রহে ৭৬৭ কোটি ২৫ লাখ টাকার প্রকল্প ধাপে ধাপে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..