1. admin@lalsabujerdesh.com : ডেস্ক :
  2. lalsabujerdeshbd@gmail.com : Sohel Ahamed : Sohel Ahamed
শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ০১:৫৩ পূর্বাহ্ন

বেরোবির কর্ম-উদ্যমী উপাচার্য প্রফেসর ডক্টর মেজর নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ, বিএনসিসিও

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ২৮৬ বার

 

১২ অক্টোবর ২০০৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুর। ২০১৭ সালের ১৪ জুন উক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের চতুর্থ উপাচার্য হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন দেশের সুপরিচিত ও খ্যাতিমান ব্যক্তিত্ব প্রফেসর ডক্টর মেজর নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ, বিএনসিসিও স্যার। দায়িত্ব গ্রহণের পর একে একে তাঁর কর্ম-উদ্যমে এগিয়ে চলেছে বেরোবি, রংপুর।
এরই ধারাবাহিকতায় উপাচার্য মহোদয়ের উদ্যোগে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে বেরোবিতেই প্রথম চালু হয়েছে ক্যাম্পাস রেডিও। আধুনিক ও যুগোপযোগী শিক্ষার জন্য তিনি ভার্চুয়াল ক্লাসরুম প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছেন প্রতিটি বিভাগে। একে একে দেশে ও বিদেশে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সাথে সমঝোতা স্মারকও স্বাক্ষর করেছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি অত্যাধুনিক মেইন গেট স্থাপন করার প্রক্রিয়া ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে। সূচনা করেছেন নারী শিক্ষার্থীদের সংগঠন উইমেন পিস ক্যাফে। সংগঠনটি বর্তমানে নারী অধিকার প্রতিষ্ঠায় নানামুখী সচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করে চলেছে। সম্প্রতি পরিকল্পনা চলছে ক্যাম্পাসে অনলাইন টিভি চালু করার।
বিশ্ববিদ্যালয়কে একটি আন্তর্জাতিক মানের বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে অন্যান্য সেক্টরের মতো গবেষণায়ও সর্বোচ্চ মনোযোগ দিয়েছেন তিনি। যার ফলস্বরূপ কেন্দ্রীয়-ভাবে বিভিন্ন শৃঙ্খলা থেকে অনেকগুলো জার্নাল প্রকাশিত হয়েছে। শিক্ষা ও গবেষণা ক্ষেত্রকে এগিয়ে নেয়ার পাশাপাশি ক্রীড়া অঙ্গনেও স্যারের নজর সুদূরপ্রসারী। বিএনসিসি ও রোভার স্কাউট কার্যক্রম এবং নিয়মিত খেলাধুলা আয়োজন করার ফলে ক্যাম্পাস আরও বেশি প্রাণবন্ত হয়ে উঠেছে। নারী শিক্ষার্থীদের সমান সুবিধা নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রমীলা ফুটবল ও ক্রিকেট খেলার সূচনা করেছেন। ক্যাম্পাসে সার্বক্ষণিক নিরাপত্তার উদ্দেশ্যে আনসার বাহিনীর জন্য আবাসনের ব্যবস্থাও করেছেন।
তাছাড়া প্রতিষ্ঠার প্রথম পর্যায়ে অনিয়ম ও দুর্নীতির জন্য বেরোবি উন্নয়নের পথে সার্বিকভাবে আলোর মুখ না দেখলেও বর্তমান পরিস্থিতি ভিন্ন। স্যারের সততায় ও একাগ্রতায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ক্ষেত্রে অনিয়ম ও দুর্নীতি কমতে শুরু করেছে। স্বচ্ছ নিয়োগ প্রক্রিয়া তার উৎকৃষ্ট উদাহরণ। পাশাপাশি স্যারের উদ্যোগেই করোনা মহামারির এ সময়ে বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতা থাকা সত্ত্বেও শিক্ষকদের পদোন্নতি হয়েছে। এগিয়ে চলেছে বিভিন্ন বিভাগের ক্লাস ও ল্যাবের জন্য যন্ত্রপাতি ক্রয় এবং ল্যাব প্রস্তুতকরণের কাজ। বাস-স্ট্যান্ড ও ক্যাম্পাসের সংযোগ সড়ক নির্মাণ চলছে দ্রুত গতিতে। উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন দরিদ্র শিক্ষার্থীদের বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে এককালীন আর্থিক সহায়তার পাশাপাশি হলের সিট ভাড়া মওকুফের।
হ্যাঁ একজন সৎ, দায়িত্ববান, পরিশ্রমী ও শিক্ষার্থী-বান্ধব উপাচার্যের কথা বলছি। আমাদের সমাজে এমন কিছু মানুষ আছেন যারা নিজ থেকেই সচেতন ও কর্তব্যনিষ্ঠ। কোন কাজ শুরু-সমাপ্ত করার জন্য এ সকল মানুষ তাগিদের অপেক্ষায় থাকেন না বরং স্বয়ংক্রিয়ভাবে নিজের কর্ম- উদ্যমেই এগিয়ে যান। তারা দায়িত্ব নিতে যেমন পিছপা হন না তেমন কর্ম সম্পাদনের ক্ষেত্রেও কোন কার্পণ্য করেন না। বিশ্ববিদ্যালয়কে এগিয়ে নেয়ার জন্য সারের কর্মপরিকল্পনা তেমন কিছুর ইঙ্গিত দেয়। আশাকরি উপাচার্য মহোদয়ের এ নব ক্ষেত্র উন্মোচনের মধ্য দিয়ে আরও এগিয়ে যাবে ভালোবাসার উত্তরবঙ্গের এ শ্রেষ্ঠ বিদ্যাপীঠ।

বিউটি মন্ডল
প্রভাষক, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুর ।
সহকারী পরিচালক, ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা দপ্তর, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুর ।
সদস্য, নবপ্রজন্ম শিক্ষক পরিষদ, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুর ।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..