1. admin@lalsabujerdesh.com : ডেস্ক :
  2. lalsabujerdeshbd@gmail.com : Sohel Ahmed : Sohel Ahmed
শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১২:৫৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
বাগেরহাটের রামপালে ০৯ (নয়) কেজির অধিক তামারসহ চোর চক্রের ০৩ জন সদস্য আটক জাপানি মেয়েসহ আত্মগোপনে থাকা বাবাকে উদ্ধার করেছে র‌্যাব সুস্থ-সবল-জ্ঞান-চেতনাসমৃদ্ধ দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ মানুষের দেশ গড়তে চেয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু : ড.কলিমউল্লাহ শিক্ষাকে বাণিজ্যিক পণ্য বানাবেন না: রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশ আলো থেকে আর অন্ধকারে ফিরে যাবে না – ওবায়দুল কাদের শেরপুরে ক্ষেতজুরে সূর্যমুখী ফুল গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় প্রতিবেশির জায়গা দখল করে বসতবাড়ি নির্মান করছে প্রভাবশালীরা বিশ্বনাথে উপজেলা আ’লীগের ভালবাসায় সিক্ত ভারপ্রাপ্ত পৌর মেয়র রফিক হাসান সাংবাদিক আলমগীর নূরকে অপহরণ,হত্যা প্রচেষ্টা; সন্ত্রাসী ও গডফাদারদের গ্রেপ্তার দাবী সুইডেনে কোরআন পোড়ানোর প্রতিবাদে কালিগঞ্জে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত

দৌলতপুরে আওয়ামীলীগ নেতা কর্মীর উপর হামলা : থানায় অভিযোগ

  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ১১৬ বার

 

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি//

কুষ্টিয়া দৌলতপুর উপজেলার আড়িয়া ইউনিয়ন সাতার পাড়া গ্রামে মঙ্গলবার দিনগত রাত অনুমানিক ১০ টার সময় স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা নোয়াব গাইন এর ওপর , স্থানীয় হাসেম আলী ও ছালাম প্রামানিকের ক্যাডার বাহিনী হামলা চালিয়েছে বলে দৌলতপুর থানায় একটি অভিযোগ হয়েছে।

এ বিষয়ে অনুসন্ধানে গেলে একাধিক এলাকাবাসী জানান দীর্ঘদিন যাবৎ আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে স্থানীয় বিএনপি’র ক্যাডার সুমন পেয়াদার ও ছালাম এর নেতৃত্বে ও হাসেম আলীর আশ্রয় প্রশ্রয় ২০ থেকে ২৫ জনের একটি দল , মঙ্গলবার দিনগত রাত আনুমানিক ১০ টার সময় , ইউনুস ফকিরের ছেলে মোতালেব শেখ , মৃত মকবুল গাইনের ছেলে নোয়াব গাইন , আজিজের ছেলে কামাল গাইন সহ আরও চার থেকে পাঁচ জনের উপর পূর্ব পরিকল্পিতভাবে তাদের হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা চালায়।

এ এ বিষয়ে মোতালেবের ছোটভাই জনি জানান, তারা ২০০১ সালে বিএনপি-জামাত যখন ক্ষমতায় যায় তখন তারা গ্রামকে গ্রাম ভাঙচুর ও লুটপাট করে নেয়।

২০০২ সালে সাতার পাড়া গ্রামে বিএনপি ক্যাডার বাহিনীর তান্ডবের গ্রামবাসী এলাকাছাড়া এই শিরোনামে প্রকাশিত একাধিক পত্রপত্রিকা ও সেই সময়ে ভাংচুরকৃত বাড়ি ঘরের ছবি গণমাধ্যমের সামনে তুলে ধরেন।

তিনি আর জানান আমরা বিএনপি-জামাত ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে নির্যাতিত হয়েছি কিন্তু আমরা ক্ষমতায় আসার পর আমরা কখনও তাদের উপর হামলা বা আক্রমণ করি নাই। কারণ আমাদের সরকার ওদের সরকারের মতো না আমরা চাই দেশের শান্তি ও উন্নয়ন।

কিন্তু বর্তমানে স্থানীয় নেতা হাসেম মাস্টারের ছত্রছায়ায় বিএনপি ক্যাডার বাহিনী আবার মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। তারা আমাদের সবসময় খুন জখমের এর হুমকি-ধামকি দিয়ে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় আমার ভাই ও আমার চাচারা গতকাল রাতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফের সাথে দেখা করে বাড়ি ফেরার পথে হামলা শিকার হন ।

এছাড়াও এলাকাবাসী আরো জানান, গত হাসেম মাস্টার ছোট একটি মারামারি কে কেন্দ্র করে প্রকাশ্য দিবালোকে অবৈধ অস্ত্র দিয়ে দুই রাউন্ড ফায়ার দেয়। বিষয়টি একাধিক এলাকাবাসী নিশ্চিত করে জানান দলীয় লেবাস কে ব্যবহার করে প্রকাশ্য দিবালোকে অস্ত্রের মহড়া দিলেও আইনানুগ কোন ব্যবস্থা হয় নাই।

এ বিষয়ে সুমন পেয়াদার বাড়িতে গেলে তাকে বাড়িতে না পেয়ে তার বাড়ির লোকজনের কাছ থেকে মুঠোফোনের নাম্বার নিয়ে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

এ বিষয়ে হাসেম আলী মাস্টার এর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, আমি বা আমার নেতৃত্বে কোন হামলা কারোর উপর হয় নাই। এবং আমার যে অস্ত্রের বিষয়টি উত্থাপন করা হচ্ছে এটা ভিত্তিহীন আমার কাছে কোন অস্ত্র নাই।

এ বিষয়ে দৌলতপুর থানা অফিসার ইনচার্জ জহুরুল আলম জানান এ বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ হয়েছে তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..