1. admin@lalsabujerdesh.com : ডেস্ক :
  2. lalsabujerdeshbd@gmail.com : Sohel Ahamed : Sohel Ahamed
শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ১২:২৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
পাবনা শিল্পকলা একাডেমী মিলনায়তনের অযৌক্তিক ভাড়া নির্ধারণের প্রতিবাদে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত বঙ্গবন্ধু অধ্যবসায়ী নেতা ছিলেন: ড.কলিমউল্লাহ ঊনপঞ্চাশটি মোবাইল ফোনসহ পোনে এক লক্ষ টাকা উদ্ধার চুয়াডাঙ্গায় বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব এর ৯২তম জন্মদিন উপলক্ষে পুষ্পস্তবক অর্পন সহকারী অধ্যাপক হিসাবে ক্যারিয়ার গড়ার সুযোগ দিচ্ছে বশেমুরবিপ্রবি শিবচরে আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত ঝালকাঠিতে শেখ কামাল’র জন্মবার্ষিকী পালিত বরগুনার তালতলীতে মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে মানববন্ধন রংপুর চিড়িয়াখানায় জলহস্তি নুপুর ও কালাপাহাড় জুটির প্রথমবার বাচ্চা প্রসব রংপুরে অনুমোদনহীন ঔষধ কারখানায় ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান ঔষধ জব্দসহ অর্থদন্ড পাবনা ফরিদপুরে সন্ত্রাসীদের গ্রামবাসীর গণপিটুনি

বেসরকারি প্রিমিয়ার ব্যাংকের টাকা আত্মসাৎকারী ব্যাংক কর্মকর্তা ভৈরব পৌরসভার মেয়র প্রার্থী জুলফিকার আলী কাইয়ুম কে ৩ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে ডিবি পুলিশ

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ২১ নভেম্বর, ২০২০
  • ২৬৩ বার

 

স্টাফ রিপোটার :
বেসরকারি প্রিমিয়ার ব্যাংকের রোকেয়া সরণির শ্যাওড়াপাড়া শাখার ডজনখানেক গ্রাহকের অজান্তে কয়েক কোটি টাকা ঋণ তোলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ব্যাংক কর্মকর্তা ভৈরব পৌরসভার মেয়র পদপ্রার্থী জুলফিকার আলী কাইয়ুম কে গত ১৫ নভেম্বর ডিবি পুলিশ গ্রেফতার করে রিমান্ড চেয়ে আদালতে প্রেরণ করলে আদালত ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে।
ব্যাংকটির অভ্যন্তরীণ তদন্তেও (অডিট) কর্মকর্তাদের অর্থ আত্মসাতের প্রমাণ পেয়ে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলায় ব্যাংকের ওই শাখার সাবেক ব্যবস্থাপক ফেরদৌস আলম এবং জ্যেষ্ঠ নির্বাহী কর্মকর্তা ও ক্রেডিট ইনচার্জ জুলফিকার আলীর বিরুদ্ধে প্রায় ১২ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়েছে।
এদের মধ্যে জুলফিকার গত ১৫ অক্টোবর ব্যাংকের ওই শাখায় অডিট চলাকালে পালিয়ে বেড়াচ্ছিলো বলে জানান মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কাফরুল থানার নির্মূলন্দ শেন বলেন, আসামি জুলফিকার আলী কাইয়ুম কে ডিবি পুলিশের মাধ্যমে গ্রেফতার করানো হয়। জুলফিকারকে রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে অনেক জালিয়াতির ঘটনা উদঘাটন করা হয়েছে।

ব্যাংকটির গ্রাহক নাসির উদ্দীন, আবদুস সালাম, মনিরুল ইসলাম, আব্দুল কাইয়ূম, মো. হেলাল উদ্দিন, দুলাল আহমেদ, লিটন আলী, মাহমুদ হাসান পল্টু, শেখ মো. সোহেল, আমিনুল ইসলাম ও মো. এনামুল হক তাদের অজান্তে অর্ধ কোটি থেকে পৌনে দুই কোটি টাকা পর্যন্ত বিভিন্ন মোটা অংকের ঋণ তোলার কথা জানিয়েছেন।

এদের মধ্যে ব্যবসায়ী নাসির উদ্দীন জানান, ফ্ল্যাট কেনার জন্য একটি ব্যাংক থেকে ঋণ নিতে গিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক ছাড়পত্র না দেওয়ায় খোঁজ নিয়ে তিনি তার নিয়মিত লেনদেনকারী প্রিমিয়ার ব্যাংকে এই ঋণের কথা জানতে পারেন।

পরে ব্যাংকের ওই শাখায় গিয়ে বিষয়টি জানালে কর্মকর্তারা কোনো ঋণ নেই বলে ছাড়পত্র দেন। এরপরেও বাংলাদেশ ব্যাংক ঋণ আছে বলে জানালে তিনি ব্যাংকে অভিযোগ করেন। অন্যরাও তার মতো অভিযোগ করলে প্রিমিয়ার ব্যাংকের বেগম রোকেয়া সরণি শাখায় ব্যাংকের কেন্দ্রীয় অডিট কমিটি তদন্ত শুরু করে।

এরপর প্রিমিয়ার ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের ভাইস প্রেসিডেন্ট এইচআরের প্রধান কাওসার আলম মজুমদার বাদী হয়ে জুলফিকার আলী (৪০) ও ফেরদৌস আলমের (৫৯) বিরুদ্ধে কাফরুল থানায় ওই মামলা দায়ের করেন।

মামলায় বলা হয়, প্রিমিয়ার ব্যাংকের নিরীক্ষা ও অডিট বিভাগ গত ১৫ অক্টোবর ব্যাংকের রোকেয়া সরণি শাখায় নিয়মিত অডিট করতে যান। অডিট কমিটির সদস্যরা এই শাখায় রাখা বিভিন্ন গ্রাহকের এফডিআর এবং ডাবল বেনিফিট হিসাবের নথি, ফরম ও রিসিপ্ট খুঁজে না পেয়ে জুলফিকার আলীর কাছে চান।

জুলফিকার খোঁজাখুজির ফাঁকে এফডিআর ও ডাবল বেনিফিট স্কিমের মূল কাগজপত্র নিয়ে হঠাৎ উধাও হয়ে যান। তাকে খোঁজাখুজি করে না পেয়ে প্রাথমিক খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, এফডিআর ও ডাবল বেনিফিটের বিভিন্ন হিসাবের বিপরীতে ১১ কোটি ৯০ লাখ টাকা আত্মসাৎ করা হয়েছে।

জুলফিকার আলী ও ফেরদৌস আলম ছাড়াও ব্যাংকের এই শাখার আরও কয়েকজন কর্মকর্তা-কর্মচারী এই কেলেঙ্কারিতে জড়িত বলে এজাহারে আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে।

এদিকে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ সন্দেহভাজন আরও ছয়জনকে ব্যাংকের ওই শাখা থেকে সরিয়ে প্রধান কার্যালয়ে ওএসডি করে রেখেছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বর্তমানে ব্যাংকটির ওই শাখার দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপক শাহরিয়ার কবির বলেন, “এখনও তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষ হলে জালিয়াতিতে আর কারা কারা জড়িত, মোট কত টাকা আত্মসাৎ করা হয়েছে এবং কারা কারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সে বিষয়ে স্পষ্টভাবে জানা যাবে।”
প্রিমিয়ার ব্যাংকের রোকেয়া সরণি শাখার জ্যেষ্ঠ নির্বাহী কর্মকর্তা ও ক্রেডিট ইনচার্জ জুলফিকার আলী, এই জালিয়াতির সাথে জড়িত।

ক্ষতিগ্রস্ত নাসির উদ্দীন বলেন, “ব্যাংকে আমার কোনো ঋণ নেই। যা ছিল তা শোধ করে ছাড়পত্রও নেওয়া হয়েছে। কিন্তু হিসাবে প্রায় আড়াই কোটি টাকা ঋণ দেখানো হচ্ছে, যা অবিশ্বাস্য।”
আমিনুল ইসলাম নামের আরেক গ্রাহক বলেন, তার নামে ১ কোটি ১৪ লাখ টাকা ঋণ নেওয়ার হয়েছে বলে জানানো হচ্ছে।

“আমি কিছুই জানি না। কীভাবে আমার নামে এই ঋণ হল বুঝতে পারছি না। কোটি টাকা কখনোই দেখিনি। আমার এখন কী হবে ভাই, রক্ষা পাবো তো?”

তার মতো একই কথা বলেন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী মাহমুদ হাসান পল্টু। তিনি বলেন, তার নামেও ৫৮ লাখ টাকা ঋণ হয়েছে বলে ব্যাংক থেকে বলা হয়েছে।

“আমি আগে ১৫ লাখ টাকার একটা ঋণ নিয়েছিলাম। পরিশোধের পর ৮ লাখ টাকা বকেয়া ছিল। সেই টাকার জন্য আমার বাবা অসুস্থ থাকা অবস্থায় ম্যানেজার ও জুলফিকার আমার বাসায় গিয়ে যাচ্ছেতাই আচরণ করে। এখন দেখানো হচ্ছে আমার নামে ৫৮ লাখ টাকার ঋণ, যার কিছুই আমি জানি না।”

১৫ অক্টোবর ব্যাংকে অডিটের সময় তিনি নিজেও উপস্থিত ছিলেন জানিয়ে পল্টু বলেন, “অডিটের অফিসাররা কাগজপত্র যাচাই করে বলেছে, আমার জাল সই করে ওই টাকা তোলা হয়েছে। ওই সময় আমি ম্যানেজারকে গালিও দিয়েছি, আমার বাবা অসুস্থ থাকাকালে ঋণের ৮ লাখ টাকার জন্য আমার সাথে কী করেছে। আর এখন এত বড় ঋণ আসল কী করে?

“ভাই আমার মাথা ঠিক নেই। এখন কী করব বুঝতেছি না।”

নাসির উদ্দীন বলেন, “আমরা কয়েকজন অডিট কমিটি এবং ব্যাংক কর্তৃপক্ষের কাছে গিয়ে বিষয়টি মৌখিকভাবে জানিয়েছি। দেখি এখন তারা কী করেন।”

শাখা ব্যবস্থাপক শাহরিয়ার কবির জানান, মামলার আসামিদের মধ্যে জুলফিকার কে গ্রেফতার করেছে ডিবি পুলিশ। আগের শাখা ব্যবস্থাপক ও ভাইস প্রেসিডেন্ট ফেরদৌস আলমসহ সাতজনকে প্রত্যাহার করে হেড অফিসে নেওয়া হয়েছে।
মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব গোয়েন্দা পুলিশের হাতে আছে, পুলিশ অতিরিক্ত উপ-কমিশনার তৌহিদুল ইসলাম বলেছেন,অভিযুক্ত প্রতারক জুলফিকার আলী কাইয়ুম কে গ্রেফতার করা হয়েছে। এবং ৩ দিনের রিমান্ড শেষে তাকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..