1. admin@lalsabujerdesh.com : ডেস্ক :
  2. lalsabujerdeshbd@gmail.com : Sohel Ahamed : Sohel Ahamed
মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০১:৫৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বিশ্বদরবারে বাংলাদেশের অবস্থান সুদৃঢ় করেছিলেন বঙ্গবন্ধু: ড.কলিমউল্লাহ বাংলাদেশ বিপুল পর্যটন সম্ভাবনাময় একটি দেশ – প্রধানমন্ত্রী উখিয়ায় ৭ কোটি টাকার ইয়াবার বিশাল চালানসহ ইয়াবা সম্রাট আলমগীর আটক চন্দনাইশ থেকে প্রায় ৫৩ লক্ষ টাকার ইয়াবা উদ্ধার, ২ মাদক ব্যবসায়ী আটক রংপুরে জাতীয় দলের স্বপ্নাকে বরণ করতে জেলা প্রশাসকের প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত রংপুরে অসাধু চক্রের দৌড়াত্ম, অনিয়ম অব্যবস্থাপনা ও জনদূর্ভোগের প্রতিবাদ জানিয়ে চিকিৎসকদের মানববন্ধন সিলেট জেলা পরিষদ নির্বাচনে তালা প্রতীক পেলেন ইমাম উদ্দিন চৌধুরী দুর্গাপুরে সাবেক এমপি জালাল তালুকদারের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া ও আলোচনা অনুষ্ঠিত নবাগত পুলিশ সুপারের সাথে “প্রিয় রাঙামাটি” সামাজিক সংগঠনের সাথে  সৌজন্য সাক্ষাৎ অভয়নগরে সড়ক দূর্ঘটনায় মোটরসাইকেল চালক নিহত

আজ সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের ৪র্থ মৃত্যু বার্ষিকী-

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ৭৩ বার

স্বীকৃতি বিশ্বাস
অভয়নগর (যশোর)

প্রখ্যাত রাজনীতিবিদ,বীর মুক্তিযোদ্ধা, সংবিধান প্রণেতাদের একজন ছিলেন সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত।তিনি ১৯৪৫ সালের ৫ মে সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই উপজেলায় জন্ম গ্রহন করেন। তার পিতার নাম দেবেন্দ্রনাথ সেনগুপ্ত এবং মাতার নাম সুমতি বালা সেন গুপ্ত। তার স্ত্রী জয়া সেনগুপ্ত। তিনি এক সন্তানের জনক ছিলেন।

সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত ১৯৬৫ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর ও পরে ঢাকা সেন্ট্রাল ল কলেজ থেকে আইনে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করে আইন পেশায় নিযুক্ত হন। তিনি বাংলা, ইংরেজি, সংস্কৃত ও হিন্দি এই ৪ টি ভাষায় দক্ষ ছিলেন।

রাজনৈতিক সচেতন সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত ছাত্র জীবনে বাম ঘরানার রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। ছাত্র ইউনিয়নের পক্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলের ভিপি প্রার্থী হয়ে ছিলেন। ১৯৬৭ সালে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ) দ্বিধাবিভক্ত হয়ে পিকিং ও মাস্কো হলে মাওলানা ভাসানীকে ত্যাগ করে অধ্যাপক মোজাফফর আহমদের নেতৃত্বাধীন অংশে যোগ দেন।

হাওরাঞ্চলের ‘ জাল যার জলা তার’ আন্দোলনে দীর্ঘদিন নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। ১৯৭০ সালের পাকিস্তান নির্বাচনে তিনি সিলেট জেলা থেকে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির প্রার্থী হিসাবে নির্বাচনে জয়লাভ করেন এবং তিনিই ছিলেন সর্বকনিষ্ঠ সাংসদ। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে ৫ নম্বর সেক্টরের সাব কমান্ডার হিসাবে মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহন করেন।

তিনি দ্বিতীয়, তৃতীয়, পঞ্চম,সপ্তম অষ্টম, নবম ও দশম সংসদ নির্বাচনে সাংসদ নির্বাচিত হন। বাংলাদেশের প্রথম সংবিধান পরিষদে তিনি বিরোধী বেঞ্চের একজন সক্রিয় সদস্য ছিলেন। এছাড়া তিনি একতা পার্টি নামে একটি দল গঠন করেন।

দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পারে তিনি রেলমন্ত্রী নিযুক্ত হন। রেল মন্ত্রাণালয়ের অর্থ আত্মসাতের কেলেঙ্কারির ঘটনা সামনে আসলে ২০১২ সালে সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত মন্ত্রী থেকে স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করলে তা গ্রহন না করে তাকে দপ্তর বিহীন মন্ত্রী হিসাবে মন্ত্রী পরিষদে রাখা হয়। এর আগে ১৯৯৬ সালে তিনি প্রধানমন্ত্রীর সংসদ বিষয়ক উপদেষ্টা হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন।

ফুসফুসের সমস্যার জন্য ২০১৭ সালের ৩ ফেব্রুয়ারী তাকে ঢাকার ল্যাব এইড হাসপাতালে ভর্তি করা হলে ৪ তারিখ রাতে শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে তাকে করোনারি কেয়ার ইউনিটে ( সিসিইউ) ও পরে লাইফ সাপোর্ট দেওয়া হলেও ৫ ফেব্রুয়ারী ভোর রাত ৪ টা২৪ মিনিটে ৭১ বছর বয়সে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন

সংসদে সর্বদা সরব,তুখোড় বক্তা,অভিজ্ঞ সংবিধান বিশেষজ্ঞ- জাতীয় নেতা সুরঞ্জিত সেমগুপ্ত – এর মৃত্যু দিবসে শ্রদ্ধার্ঘ্য।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..