1. admin@lalsabujerdesh.com : ডেস্ক :
  2. lalsabujerdeshbd@gmail.com : Sohel Ahamed : Sohel Ahamed
বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২, ০৩:০২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরলেন সিটি মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কের চৌদ্দগ্রাম পৌর অংশে ময়লার বাগাড়, শিশুদের স্থাস্থ্য ঝুঁকির আশংকা সর্বসাধারণের জন্য বিশুদ্ধ খাবার পানির সুব্যবস্থা এর উদ্বোধন করলো পুনাক বাগেরহাটের রামপালে  ৬১টি জিআই পাইপ ও ১টি লোহার বিম ও ৮০টি জিআই পাইপ ও ১টি ওয়াটার বাল্বসহ মোট ৭ লক্ষাধিক টাকার মালামাল জব্দ করেছে ৩ আনসার ব্যাটালিয়ন, রামপাল ক্যাম্প। বাঙালির মুক্তির জন্য বহু বিনিদ্র রজনী অতিবাহিত করেছেন বঙ্গবন্ধু : ড.কলিমউল্লাহ বাড়তি বৃষ্টিপাতে হতে পারে বন্যা, শঙ্কা আছে ঘূর্ণিঝড়ের ‘মুজিববর্ষে প্রায় ২ লাখ পরিবার সরকারি ঘর পেয়েছে’ – প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘে গণহত্যার স্বীকৃতির দাবিতে কাল রংপুর সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম মুক্তিযুদ্ধ ৭১ এর মানববন্ধন রংপুরে মাসব্যাপী শিল্প ও বাণিজ্য মেলা শুরু নেত্রকোণা জেলার শ্রেষ্ঠ ইউএনও অফিসার রাজীব-উল-আহসান

আন্তর্জাতিক নারী দিবসে মনে পড়ে বেগম রোকেয়াকে

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৭ মার্চ, ২০২১
  • ৭৪ বার

 

লিয়াকত হোসেন খোকন

আন্তর্জাতিক নারী দিবস প্রতি বছর মার্চ মাসের ৮ তারিখে পালিত হয়। সারা বিশ্বব্যাপী নারীরা একটি প্রধান উপলক্ষ হিসেবে উদযাপন করে থাকেন। বিশ্বের এক এক প্রান্তে নারী দিবস উদযাপনের লক্ষ্য এক এক প্রকার হয়। কোথাও নারীর প্রতি সাধারণ সন্মান ও শ্রদ্ধা উদযাপনের মুখ্য বিষয় হয়, আবার কোথাও মহিলাদের আর্থিক, রাজনৈতিক ও সামাজিক প্রতিষ্ঠাটি বেশি গুরুত্ব পায়।
কিন্তু দুঃখ হলেও যে সত্য কথা , কতিপয় লোক বার বার নারীদের প্রতি অসম্মানজনক কথাবার্তা বলে পার পেয়ে যাচ্ছে – নারীর প্রতি অবমাননাকর কথা বলেও কেন তাদেরকে করা হচ্ছে না ডিজিটাল আইনের মুখোমুখি? নারীকে যারা তেঁতুল বলে কিম্বা কটাক্ষ করে যারা বক্তব্য দেয় ; লেখালেখি করে তাদের বিরুদ্ধেও চাই কঠোরতর শাস্তি!
নারী জাগরণের অগ্রদূত বেগম রোকেয়ার মৃত্যুর পরে কলকাতায় কতগুলি কবরস্থান থাকার পরেও কারা কবর দিতে বাধা দিয়েছিল – সেই অমানবিক কাহিনী কারো কারো হয়তো জানা আছে। সেই কাহিনী মনে হলে আজও চোখে জল নেমে আসে।
একবার কলকাতা গিয়ে ভাবলাম যে করে হোক দেখব এবার বাঙালি মুসলিম নারী জাগরণের অগ্রদূত ও
প্রথম বাঙালি নারীবাদী বেগম রোকেয়ার কবর বা
সমাধি সৌধ – যাকে জিজ্ঞেস করি, সেই বলে জানি না
কোথায় বেগম রোকেয়ার কবর কলকাতার এক রাস্তায় দাঁড়িয়ে এ নিয়ে জিজ্ঞাসা টিজ্ঞাসা করছিলাম
ট্যাক্সি চালক আলমগীর এসে বললো – বাবু , আমি জানি – আপনাকে সেখানে নিয়ে যাবো আবার নিয়ে
আসবো – বললাম , কত দিতে হবে। হাসলেন চালক আলমগীর খুশী হয়ে যা দিবেন তাই নিব
আর অপেক্ষার বাঁধ মানে না – ট্যাক্সিতে উঠে
ছুটলাম বেগম রোকেয়ার কবর দেখতে মনের কোণে উঁকি দিল – ১৯৩২ সালের ৯ ডিসেম্বর প্রয়াত হয়েছিলেন বেগম রোকেয়া — আলমগীর ট্যাক্সি চালাচ্ছে আর বলছেন – বেগম রোকেয়া প্রয়াত হয়েছিলেন কলকাতার লোয়ার সার্কুলার রোডে – যা কিনা আজ ভূপেশ ভবন – জানাজার পরে দাফনের জন্য কবর মিললো না তাঁর বিশাল নগরী কলকাতায়।
কারণ কি জানেন?
জিজ্ঞেসা – কি?
তৎকালীন মৌলবাদীরা বাধা হয়ে দাঁড়াল মৌলবাদীরা তাঁকে সহ্য করতে পারতেন না ধর্মের অপব্যাখ্যাকারীরা তাঁর নামে দিয়েছিল নানা ধরনের অপবাদ –
মেয়েদের স্কুল গড়া ; নারী জাগরণের কথা – নারীর
অধিকার নিয়ে কথা বলায় মৌলবাদীরা তাঁকে
কলকাতায় সমাহিত করতে দেয়নি!
বলুন দাদা, এরা কি আদৌ মানুষ – ? আমি বলবো, যারা সেদিন বেগম রোকেয়াকে কলকাতার মাটিতে দাফন করতে দেয়নি তারা অমানুষ – স্রেফ অমানুষ!
কলকাতা থেকে প্রায় ৩০ কিলোমিটার দূরে এক সময় এসে পৌঁছলাম অনেক অপেক্ষার সেই স্থানে
জায়গার নাম পাণিহাটি – সোদপুর। সোদপুর হ’ল পাণিহাটি পৌরসভার অন্তর্গত একটি মফস্বল শহরাঞ্চল। এই জায়গাটি উত্তর চব্বিশ পরগণা জেলার
ব্যারাকপুর মহকুমায় অবস্থিত।
তবে সোদপুর এলাকাটি বৃহত্তর কলকাতা বা
মেট্রোপলিটন কলকাতার অন্তর্গত পাশাপাশি রয়েছে হুগলি নদী – কেউ বা বলেন গঙ্গা। এখানের পাণিহাটি বালিকা বিদ্যালয়ের সামনে এসেই ট্যাক্সি রাখলেন চালক। আলমগীর বললেন, চলেন স্কুল কম্পাউন্ডে
ওখানেই বেগম রোকেয়ার কবর – ভিতরে ঢুকলাম, দেখলাম কবর! আমি যে বছর গিয়েছিলাম সে বছর
আজকের মত সম্ভবত ততটা চাকচিক্য বোধহয় ছিল না!
শুনেছিলাম, এখানে বেগম রোকেয়াকে যখন দাফন করা হয় – তখন পাণিহাটি বালিকা বিদ্যালয় স্থাপিত হয়নি। পরবর্তীতে এরও ১৩ কি ১৪ বছর পরে পাণিহাটি বালিকা বিদ্যালয়টি হয়েছিল স্থাপিত।
সেই দিন শুধু মনে মনে ভেবেছিলাম – নারী জাগরণের অগ্রদূত আপনাকে দেখব বলে এসেছি যে সুদূর পূর্ববাংলা হতে।
কবরের পানে তাকিয়ে এ-ও বলেছিলাম —
হে নারী জাগরণের অগ্রদূত আপনি কি আমাকে
দেখতে পেয়েছেন? আমার হৃদয় মাঝে আছেন বলে
নিখিলের এত শোভা, এত রূপের মাঝে যেন দেখিবারে পাই – বেগম রোকেয়া – বেগম রোকেয়া!
তবে তা কি মনের কল্পনা ? হয়তো বা হবে, আপনি কি আমা পানে চেয়েছিলেন – আমার অব্যক্ত বেদনার কথা
কি শুনিতে পেয়েছিলেন! দিকে দিকে চারিদিকে চলছে নারীদের প্রতি অত্যাচার – নির্যাতন এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে! নারী অবমাননাকারীদের বিষদাঁত ভেঙ্গে দিতে আপনার বিকল্প আর যে কাহাকেও দেখিতে না পাই এই বিশ্ব ভূবনে ! আপনি নারী জাগরণের চিরদিনের চিরকালের অগ্রদূত।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..