পুলিশ সপ্তাহে বাংলাদেশ পুলিশ পদক পাচ্ছেন চুয়াডাঙ্গা’র পুলিশ সুপার জাহিদুর ইসলাম

পুলিশ সপ্তাহে বাংলাদেশ পুলিশ পদক পাচ্ছেন চুয়াডাঙ্গা’র পুলিশ সুপার জাহিদুর ইসলাম

মোঃআজিজুর রহমান চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রতিনিধিঃ
বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম-সেবা) বাংলাদেশ পুলিশের সদস্যদেরকে প্রতিবছর অসীম বিরত্ব ও সাহসীকতাপূর্ণ কাজের স্বীকৃতি হিসাবে প্রদান করা হয়। প্রতিবছর পুলিশ সপ্তাহের বার্ষিক পুলিশ প্যারেডে বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের এই পদক পরিয়ে দেন। যারা এই পদকে ভূষিত হন তাদের নামের শেষে বিপিএম উপাধি যুক্ত হয়।

চুয়াডাঙ্গা জেলার পুলিশ সুপার জনাব মোঃ জাহিদুল ইসলাম এ বছর পুলিশ সপ্তাহে গুরুত্বপূর্ণ মামলার রহস্য উদঘাটন, অপরাধ নিয়ন্ত্রণ, দক্ষতা, কর্তব্যনিষ্ঠা, সততা ও শৃঙখলা মূলক আচারণের মাধ্যমে প্রশংসনীয় অবদানের জন্য বাংলাদেশ পুলিশের সর্বোচ্চ পদক বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম-সেবা) পদকে ভূষিত হচ্ছেন। আগামী ২৩.০১.২০২২ খ্রিঃ তারিখে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাজারবাগ পুলিশ লাইন্স প্যারেড গ্রাউন্ডে আনুষ্ঠানিকভাবে (ভার্চুয়ালি) এ পদক প্রদান করবেন।

পুলিশ সপ্তাহে মোট চারটি ক্যাটাগরিতে এই পুরস্কার দেয়া হয়- বিপিএম সাহসিকতা, বিপিএম সেবা, পিপিএম সাহসিকতা, পিপিএম সেবা। এ বছর পুলিশ সপ্তাহে ২০২০ সালে অসীম সাহসিকতা ও বীরত্বপূর্ণ কাজের স্বীকৃতি স্বরুপ ১৫জন বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম), ২৫জনকে রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক (পিপিএম) পদক এছাড়াও গুরুত্বপূর্ণ মামলার রহস্য উদঘাটন, অপরাধ নিয়ন্ত্রণ, দক্ষতা, কর্তব্যনিষ্ঠা, সততা ও শৃঙখলা মূলক আচারণের মাধ্যমে প্রশংসনীয় অবদানের জন্য ২৫জনকে বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম-সেবা) এবং ৫০জনকে রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক (পিপিএম)-সেবা প্রদান করা হয়।

জনাব মোঃ জাহিদুল ইসলাম, পুলিশ সুপার, চুয়াডাঙ্গা হিসাবে গত ০৯.০৯.২০১৯ খ্রিঃ তারিখ দায়িত্ব গ্রহণের পর জেলার আইন শৃঙ্খলা রক্ষা অপরাধ নিয়ন্ত্রন মানবিক, সামাজিক, গণমুখী ও প্রো-এ্যাকটিভ পুলিশিং সেবা অব্যাহত রেখেছেন। তাঁর বিভিন্ন ধরণের উল্লেখযোগ্য কর্মকান্ডের সংক্ষিপ্ত বিবরণীঃ

জনকল্যাণ ও মানবিক কার্যক্রম সমূহঃ
সমাজে কন্যা সন্তানের গুরুত্ব অনুধাবন করতে কন্যা সন্তান বোঝা নয় আশির্বাদ এই স্লোগানে চুয়াডাঙ্গা জেলায় বসবাসরত ৮০৩টি সদ্য ভূমিষ্ঠ কন্যা সন্তানের পরিবারকে শুভেচ্ছা উপহার, ফুল ও মিষ্টি প্রদান করেন। চুয়াডাঙ্গা শিশু পরিবারের ৬৩ শিশুকে ঈদের নতুন পোষাক এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা পুলিশ সদস্যদের ঈদ উপহার প্রদান করেন। শারিরীক প্রতিবন্ধী ০৫ জনকে হুইল চেয়ার প্রদান করেন। ০৫ জন অসহায় বৃদ্ধা নারীকে শাড়ী ও বস্ত্র, ঔষধ এবং নগদ টাকা প্রদান। চুয়াডাঙ্গা জেলার ০৪ জন মেধাবী শিক্ষার্থীর ভর্তি ফি ও বেতন মওকুফ করে লেখাপড়ার সুযোগ এবং বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া একজনকে বই প্রদান করেন। চুয়াডাঙ্গা জেলা হতে পিআরএল এ যাওয়া ০৫ জন পুলিশ সদস্যকে সম্মাননা স্মারকসহ শুভেচ্ছা উপহার প্রদান পূর্বক সু-সজ্জিত সরকারি গাড়ীযোগে বাড়ীতে পৌছে দেওয়ার ব্যবস্থা গ্রহন করেন। গত ০৭.০২.২০২০ খ্রিঃ তারিখে জেএসসিতে জিপিএ-৫ (A+) প্রাপ্ত প্রায় ৭০০ জন ছাত্র-ছাত্রীদের সংবর্ধনা, গাছের চারা বিতরণ, শিক্ষা সামগ্রী উপহার, ক্রেষ্ট ও সার্টিফিকেট প্রদান এবং তাদের মানসপটে পুলিশ সম্পর্কে ভ্রান্ত ধারনা ডিলেট করতঃ পুলিশিং কাজের বাস্তবতা ও দেশ প্রেমের চেতনায় উদ্ভুদ্ধ করা হয়। ৩৮ বিসিএস সুপারিশপ্রাপ্ত ২৮ জন কৃতী শিক্ষার্থীদের বাড়ীতে শুভেচ্ছা উপহার হিসেবে মিষ্টি ও ফুল প্রেরণ করা হয়েছে।

পারিবারিক বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করে ২০২টি ভাংগা সংসারকে জোড়া লাগানোর ব্যবস্থা গ্রহণ করেন। অসহায় সুবিধা বঞ্চিত ১১ জন মানুষকে ঔষধ ও আর্থিক সহায়তা প্রদান করেন। চুয়াডাঙ্গা জেলার বিভিন্ন স্থানের গাছে গাছে ৫,০০০ মাটির হাড়ি, বাঁশের চুঙ্গা বেধে পাখিদের জন্য বাসা তৈরী করে দেন। শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মহিলা ক্রিকেট একাডেমির ক্রিকেটরদের সাদা ক্যাপ ও কালো চশমা উপহার প্রদান করেন। ১৭ মাদক ব্যবসায়ীকে মাদক ব্যবসা ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনেন।

চুয়াডাঙ্গা জেলায় লকডাউন কার্যকর করায় খেঁটে খাওয়া কর্মজীবি মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়ে। বিষয়টি অনুধাবন করে তিনি নিজ উদ্যোগে গত ২৯.০৩.২০২০ খ্রিঃ তারিখ থেকে রাতের অন্ধকারে কর্মহীন মানুষের ঘরে ঘরে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দেওয়া শুরু করেন।করোনা উপর্সগ নিয়ে মৃত্যুবরণকারী ১৮৯ জনের দাফনে সরাসরি সহায়তা করেন। চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ১০টি বড় অক্সিজেন সিলিন্ডার, ২০০০ লিটার বোতলজাত বিশুদ্ধ পানি এবং স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন নেটওয়ার্ক চুয়াডাঙ্গাকে ০৫ টি অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রদান করেন। লকডাউন বিদ্যমান থাকাকালীন সময়ে ৮,২০৫ জন কর্মহীন গরীবদের বাড়ীতে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দেন। করোনাকালীন দুঃসময়ে সাধারন মানুষকে মাস্ক ব্যবহারে আগ্রহী করতে ৪০হাজার মাস্ক বিতরণ করেন।

মাদক ও অস্ত্র উদ্ধারঃ
বাংলাদেশের সুযোগ্য নের্তৃত্ব মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক ঘোষিত মাদক নির্মূল কার্যক্রম এবং মাননীয় আইজিপি মহোদয়ের মাদক বিরোধী জিরো টলারেন্স নীতির প্রেক্ষিতে চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশ কর্তৃক চলমান অভিযান পরিচালনায় গত ০১.০১.২০২০ হতে ৩০.১১.২০২০ খ্রিঃ পর্যন্ত সময় পর্যন্ত মামলা রুজু হয়েছে ১৩২০টি, মামলা নিষ্পত্তি হয়েছে ১৪৬৯টি, নিয়মিত আসামী গ্রেফতার ১৭৪৯জন এবং এর মধ্যে উদ্ধার জনিত মামলা ৬৩৩টি উদ্ধার জনিত মামলায় আসামী গ্রেফতার ৮২৭ জন, উক্ত মামলায় ফেন্সিডিল-১৫৭১৯ বোতল, হেরোইন- ০.০৫৫ গ্রাম, গাঁজা-১৮৯ কেজি ৫৯৫ গ্রাম, ইনজেকশন-১০৮৮ পিচ, গাঁজার গাছ-৩১টি, বাংলা মদ-৫৩৬ লিটার, ভারতীয় মদ- ৫৯ লিটার, চেলাই মদ-৭০৬ লিটার, দেশীয় মদ-২৬লিটার, বেঙ্গল টাইগার মদ-০২ বোতল, তাড়ী- ২৭লিটার, তরল ফেন্সিডিল-০২লিঃ, ওয়াস মদ- ১০০ লিটার উদ্ধার করা হয়েছে।

চরমপন্থি অধ্যুষিত চুয়াডাঙ্গা জেলাকে অবৈধ অস্ত্র মুক্ত রাখতে অভিযান পরিচালনা করে ০১টি পিস্তল, ওয়ান শুটার গান-০৩টি, ০১টি দেশীয় তৈরী ছোরা, ০১টি তলোয়ার, ০২টি রামদা, ০১টি স্টীলের চাপাতি, ছোড়া-০১টি, হাসুয়া-০১টি, লোহার দা-০১টি, তার কাটার কাচি-০২টি উদ্ধার করা হয়। উক্ত ঘটনায় ০৭টি মামলা রুজু হয় এবং ১৩ জন আসামী গ্

Leave a Reply

Your email address will not be published.